সমাপ্ত হতে যাচ্ছে ১৮ বছরের আফগান যুদ্ধ : সৈন্য প্রত্যাহারে সম্মত আমেরিকা

Posted by

আমেরিকার সাম্রাজ্যবাদি অহমিকা চূর্ণ হতে যাচ্ছে আফগানিস্তানে। “সন্ত্রাসী” তালেবানের সাথে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া নয়দিনব্যাপী আলোচনার ২য় দিনে গত শুক্রবার আফগানিস্তান থেকে সৈন্য সরিয়ে নিতে সম্মত হয়েছে আমেরিকা। সরিয়ে নেয়ার প্রক্রিয়া কেমন হবে শুধু সে বিষয়েই আলোচনা হবে সামনের দিনগুলোতে।

বুধবার আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সাংবাদিকদের বলেন, আমরা ১৮ বছর হলো আফগানিস্তানে যুদ্ধ করছি। এটা আমাদেরকে হাস্যকর বানিয়ে দিয়েছে।

আমেরিকা গত বছর প্রায় আটবার বৈঠক করেছে তালেবানের সাথে। এই বৈঠকগুলোতে আফগানিস্তান থেকে বিদেশি সৈন্য প্রত্যাহার, যুদ্ধ বিরতি, আন্ত–আফগান শান্তি আলোচনা, ভবিষ্যতে বৈশ্বিক “সন্ত্রাসের” জন্য আফগানিস্তান আবার পূর্বের মত “লঞ্চ প্যাড” হবে কি না ইত্যাদি বিষয় নিয়ে দুই পক্ষ আলোচনা করেছে।

সেপ্টেম্বরে আফগানিস্তানে সাধারণ নির্বাচন। আর ২০২০ সালে আমেরিকায় নির্বাচন। এর পূর্বেই “সম্মানের” সাথে আফগানিস্তান থেকে সরে পড়তে চায় সুপার পাওয়ার আমেরিকা।

তবে আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি সম্ভবত ভিন্ন কিছুর ইঙ্গিত দিলেন। তিনি না কি তালেবান–মার্কিন চুক্তিতে “সম্মতি” দেওয়ার পূর্বে পূর্ণ আলোচনা আগে বিস্তারিত পড়ে দেখবেন। আফগান টেলিভিশনে দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, আমেরিকা যদি দ্রুত পাঁচমাসের মধ্যেই তার সৈন্য প্রত্যাহার করে নেয় তবু সেটা আফগানিস্তানের পরিস্থিতির উপর বিশেষ প্রভাব পড়বে। আমেরিকা–তালেবান চুক্তি তার প্রত্যাশা মত না হলে তিনি তা মেনে নিবেন না এবং তিনি মার্কিন সৈন্যর উপর বিশেষ নির্ভরশীল নন সম্ভবত এরকম কিছু বলতে চেয়েছেন।

আশরাফ গণি সরকারকে আমেরিকার দোলানো পুতুল মনে করে তালিবান। তাই বহু চেষ্টা সত্বেও আফগানিস্তানের বর্তমান সরকারের সাথে কোনো আলোচনায় বসাতে তালেবানকে রাজি করাতে পারেনি আমেরিকা। আশরাফ গণির প্রশাসনকে আফগানিস্তানের জনগণ বিশ্বাসঘাতক মনে করে। আমেরিকা পরবর্তী আফগানে তাদের পরিণতি কি হতে পারে তা নিয়ে শঙ্কিত আশরাফ গণি।

সূত্র : দ্য ডন