৫০০ কোটি টাকার ড্রোন দিয়ে সোলাইমানিকে হত্যা!

Posted by

গত ৩ জানুয়ারি মার্কিন বিমান হামলায় নিহত হন ইরানের এলিট কুদস বাহিনীর প্রধান কাসেম সুলেইমানি। আর সুলেইমানিকে হত্যা করতে আমেরিকা বিরাট শক্তিশালী হেলফায়ার মিসাইল ব্যবহার করে। যত ধরনের শক্তিশালী ট্যাংক রয়েছে, সবকেই গুঁড়িয়ে দুরমুশ করে দিতে পারে এই হেলফায়ার মিসাইল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক কর্মকর্তা জানিয়েছিলেন যে, বাগদাদের উদ্দেশে রওনা দিতে সুলেইমানি কখন প্লেনে উঠেছেন, কী করছেন সবই ছিল তাঁদের নখদর্পণে। সৌজন্যে এই হেলফায়ার মিসাইল।

দুটি গাড়িতে সুলেইমানি এবং তাঁর দল বাগদাদ বিমানবন্দরের দিকে রওনা দিয়েছিল। সেই দুটি গাড়িই উড়িয়ে দিয়েছিল দুটি হেলফায়ার মিসাইল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কম্যান্ডের কাতারের হেডকোয়ার্টার থেকেই এই অভিযান চালানো হয়েছিল বলে সূত্রের খবর।

লেজারের মাধ্যমে চালিত হয় এই হেলফায়ার মিসাইল। তবে সূত্র মারফত খবর, সুলেইমানিকে হত্যা করার জন্য MQ-9 Reaper ড্রোন ব্যবহার করা হয়েছিল। এই ড্রোন আদতে হেলফায়ারের মতো মিসাইল সহজেই বহন করতে সক্ষম।

‘এয়ার টু এয়ার’ এবং ‘এয়ার টু গ্রাউন্ড’ দুই ক্ষেত্রেই আঘাত হানতে সম্ভব এই মিসাইল। ট্যাংক, বাঙ্কার এমনকী যে কোনও ধরনের ভারী বস্তুকে এক আঘাতেই চূর্ণবিচূর্ণ করে দিতে পারে হেলফায়ার। নিশানাকে এয়ারক্রাফ্টের অন্দর থেকেই বা প্লেনের বাইরে থেকেও লেজারের সাহায্যে লক করতে পারে এই বহুল শক্তিশালী মিসাইল।

যেমন ড্রোন তেমন মিসাইল!

এই MQ-9 Reaper ড্রোনের মূল্য প্রায় ৫০০ কোটি টাকা। এর উইংস্প্যান ২০ মিটার অবধি বিস্তৃত আর ৬৬ ফুটের। ১০ মিনিট ধরে এই মারাত্মক ড্রোনের নজরে ছিল সুলেইমানির যাবতীয় কার্যকলাপ।

২৩০এমপিএইচ (230mph) গতিসম্পন্ন এই ড্রোনের কারিকুরি সবই ১০০ মাইল দূর থেকেও নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। দুনিয়ার যে প্রান্তেই হোক না কেন, নিঃশব্দে হামলার সমস্ত ছবি এক নিমেষে তুলে আনতে সক্ষম এই ড্রোন।

MQ-9 Reaper ড্রোন আদতে এক্কেবারেই সাইলেন্ট একটি ড্রোন। সুলেইমানি এবং তাঁর সঙ্গীদের কোনও ধারণাই ছিল না যে, তাঁদের দিকে কী বিরাট শক্তিশালী মিসাইল থাবা বসিয়ে রয়েছে।

আকারে এবং দেখতেও খানিকটা মিনিপ্লেনের মতোই। নানান ধরনের, নানা ওজন বহনে সক্ষম এই হেলফায়ার মিসাইল। ২০১২ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তরফে ২৪,০০০ হেলফায়ার টু মিসাইল অর্ডার করা হয়েছিল জওয়ানদের জন্য। নানান অভিযানের মধ্যে দিয়ে সন্ত্রাসবাদীদের খতম করতে হেলফায়ার মিসাইলের এই ভার্সনই ব্যবহার করে আসছে আমেরিকা। যদিও সুলেইমানিকে হত্যা করতে কো হেলফায়ারের কোন ভার্সন ব্যবহার করা হয়েছিল তা যদিও জানা যায়নি।

সূত্র: টাইমস অফ ইন্ডিয়া, এই সময়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *