কিছু ভুলের ক্ষমা নেই, মা-বাবাও পরিত্যাগ করেছেন, নীল ছবি ছাড়ার পর বললেন মিয়া

Posted by

চোখে চশমা। মুখে যুবতীর সারল্য। আপাতদৃষ্টিতে সাদামাঠা দেখতে হলেও গোটা দুনিয়ায় তাঁর পরিচিতি নীল ছবির তারকা হিসাবেই। নীল ছবিতে কাজের জন্য মিয়া নাম চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লেও, অনেকেই হয়ত জানেন না এই পেশা তিনি ছেড়েছেন বহু আগেই। মাত্র ৩ মাস নীল ছবিতর জগতে কাজ করেছেন মিয়া খলিফা। অল্প বয়েসে অনেক টাকা রোজগার, অজানা রঙিন জগতে হারিয়ে যাওয়ার হাতছানি থেকেই এই পেশায় আসেন তিনি। অথচ মোহভঙ্গ হয় মাত্র তিন মাসেই। সম্মান ও সময়ের বিনিময়ে সেভাবে টাকাও রোজগার করতে পারেননি মিয়া। সম্প্রতি সংবাদসংস্থা বিবিসি-কে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে নিজের অভিজ্ঞতার কথা খোলসা করছেন প্রাক্তন পর্ন তারকা মিয়া খলিফা।

২০১৫ সালে তিন মাস কাজ করার পরেই এই পর্ন ছবির জগৎ থেকে বেরিয়ে এসেছেন। অথচ হারানো সম্মান আর ফিরে পাননি মিয়া। পর্ন জগতের নীল আলো থেকে বেরিয়ে আজও স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেননি তিনি। তাঁর ব্যক্তিগত জীবন তছনছ হয়ে গিয়েছে। “আজও রাস্তাঘাটে লোকজনের মাঝে নিজেকে নিয়ে ভীষণ হীনমন্যতায় ভুগি”, এমনটা বললেন আবেগপ্রবণ মিয়া।

মিয়ার কথায়, নীল ছবির জগত থেকে বের হওয়াটা সহজ নয় কখনওই। এই ইন্ডাস্ট্রিতে ঢোকার পর একের পর এক পাকচক্রে জড়িয়ে পড়েন অল্পবয়সী মেয়েরা। পর্ন ইন্ডাস্ট্রির ব্ল্যাক হোল টেনে নেয় অল্পবয়সী মেয়েদের। নারী পাচারকারীদের মাধ্যমেও কীভাবে ছোট ছোট মেয়েরা পর্ন ইন্ডাস্ট্রিতে আসতে বাধ্য হয়, সেই বিষয়েও জানিয়েছেন মিয়া। তিনি বললেন, “বহু মেয়ে অপরিণত মনে, ভুল সিদ্ধান্ত ও কিছু খারাপ মানুষের পাল্লায় পড়ে নিজের জীবন নষ্ট করে দিয়েছে। আমায় এ ধরনের অনেক মেয়েই মেইল করে সে কথা জানিয়েছে।”

মিয়ার কথায়, পর্ন ইন্ডাস্ট্রির আসল রূপ বুঝতে পেরেই কোনওমতে সেখান থেকে বেরিয়ে আসেন তিনি। মিয়া জানান, তাঁর পর্ন ছবি করার কথা জানতে পেরেই তাঁকে ত্যাগ করেছেন মা-বাবা। সেই পর্ন ছেড়ে দেওয়ার পরেও আর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়নি। তবে, সময়ের সঙ্গে ক্ষত কমতে থাকে। তাই আজও আশার আলো মিয়ার চোখে। নীল ছবির জগত থেকে বেরিয়ে মিয়া এখন আইনসংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কাজ করেন। হিসাবরক্ষকের কাজ করেন তিনি। মিয়া বললেন, “কিছু ভুলের ক্ষমা হয় না, কিন্তু সময়ের সঙ্গে পরিস্থিতি বদলাবে, সেই আশা রাখি।”